Health and Medical

কীভাবে হাঁটুর ব্যথা দ্রুত দূর করা যায়?

কীভাবে হাঁটু ব্যথা দ্রুত দূর করা যায়?

হাঁটুর ব্যথা শুধু বার্ধক্যজনিত কারণেই হয় না। যেকোনো বয়সেই এই সমস্যা হতে পারে। ব্যথার মাত্রা হতে পারে মৃদু থেকে অসহনীয় মাত্রার। হাঁটুর ব্যথার কিছু কারণ এবং ঘরোয়া উপায়ে কীভাবে হাঁটু ব্যথা দ্রুত দূর করা যায় ও কোন ব্যথানাশক ওষুধ বেশি কার্যকর – সে বিষয়েই থাকছে এই লেখায়।

হাঁটুর ব্যথার কারণ

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় বয়স্ক মানুষের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ব্যথা হয়। বয়স বাড়ার সাথে সাথে মানুষের হাড়ের গঠন নাজুক হতে শুরু করে, তাই বয়স্কদের মাঝে শরীরে ব্যথার পরিমাণ বেশি। হাঁটু, পা, হাত, কোমর, পিঠ, ঘাড় এর মতো অঙ্গে ব্যথা বেশি দেখা যায়।

কিন্তু শুধু বয়স্কদের বেলায়ই নয়, দূর্ঘটনা অথবা কোনো রোগের উপসর্গ হিসেবে দেহের যেকোনো অঙ্গে ব্যথা হতে পারে যে কারোরই। হাঁটুর ব্যথার ক্ষেত্রেও তা-ই। এটি হতে পারে একাধিক কারণে। কোনো আঘাত, দূর্ঘটনার কারণেও হতে, আবার কোনো আঘাত ছাড়াও হতে পারে।

কিছু উল্লেখযোগ্য কারণ হলো –

হাঁটুতে মচকানো ও টান লাগা


একটানা হাঁটা, দৌড়, খেলাধুলা অথবা অতিরিক্ত ভরের কারণে হাঁটুর পেশিতে টান পড়ে ব্যথা হতে পারে। হাঁটুর জয়েন্ট অস্বাভাবিক মোচড়ে পড়ে মচকে গেলে সেটার জন্যও হতে পারে। পায়ের লিগামেন্ট ছিঁড়ে গেলে বা লিগামেন্টে টান লাগলেও হতে পারে। এমনটা খেলোয়াড়দের বেশি হয়।

হাড় ভেঙে যাওয়া


এক্সিডেন্ট, মারামারির কোনো পর্যায়ে পায়ের হাড়ে শক্ত আঘাতে হাড় ভেঙে গেলে সারা পায়ের সাথে হাঁটুতেও ব্যথা থাকতে পারে।

কার্টিলেজ বা তরুণাস্থি ক্ষয়
হাঁটুর পেশির তরুণাস্থি কোনো রোগের কারণে দূর্বল হয়ে পড়তে থাকলে ও ক্ষয় হয়ে যেতে থাকলে উপসর্গ হিসেবে ব্যথা করে।

ঢাকনায় আঘাত


হাঁটুর জয়েন্টের ঢাকনায় আঘাত পেয়ে ঢাকনার নিচে ফুলে গেলেও ব্যথা হতে পারে। আঘাতের কারণে ঢাকনার অবস্থান সরে গেলেও ব্যথা হয়ে থাকে।

বাত


বাতের ব্যথা অনেকের ক্ষেত্রে বংশগত কারণে হয়ে থাকে। সেটার কারণেও হতে পারে হাঁটুতে ব্যথা।

পা বিশ্রাম না পাওয়া


অনেকক্ষণ একটানা হাঁটা কিংবা দৌঁড়ানোর কারণে পায়ের সাথে হাঁটুতেও ব্যথা হয়ে থাকে।

আরও কিছু কারণ

ওবেসিটি বা ওজনাধিক্যতা, অস্টিওআর্থ্রাইটিস, আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিসের কারণেও হাঁটু ব্যথার ঘটনা ঘটতে পারে।

কীভাবে হাঁটুর ব্যথা দ্রুত দূর করা যায়?

হাঁটুর ব্যথা সাধারণ একটি সমস্যা। কোনো মারাত্মক কিছু না। তবে কোনো রোগের কারণে এটা হলে তাহলে তখন সেটা মারাত্মক কারণ হয়ে উঠতে পারে। এছাড়া সাধারণত কোনো আঘাত, আঘাত ছাড়া যেসব কারণে ব্যথা হয়, সেই ব্যথা সহজেই ঘরোয়া উপায়ে দূর করা যায় কোনো ট্যাবলেট না খেয়েই।

সেরকম কয়েকটি সহজ উপায় হলো –

১. বিশ্রাম

হাঁটুর ব্যথার অন্যতম কারণ হলো বিশ্রাম না পাওয়া। একনাগাড়ে পা’কে কাজে লাগানোর ফলে ক্লান্তির প্রকাশ হিসেবে ব্যথা করতে পারে। তাই কিছুক্ষণ কাজ বন্ধ রেখে পায়ের বিশ্রাম নিন।

আর যদি কোনো আঘাতের কারণে ব্যথা হয়, তাহলে সেই আঘাত সেরে না ওঠা পর্যন্ত পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে হবে।

২. অতিরিক্ত ভারী কোনো ব্যায়াম না করা

আপনার শরীর ও সামর্থ্য অনুযায়ী ব্যায়াম নির্বাচন করুন। দৌড়, লাফ, কিকিং এর মতো ব্যায়ামগুলো অনেকসময় হাঁটু ব্যথায় ভোগাতে পারে। তাই এই ব্যায়ামগুলো খুব বেশি সময় ধরে করবেন না।

৩. ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা


অতিরিক্ত ওজনের কারণে পায়ে, হাঁটুতে অতিরিক্ত ভর পড়ায় ব্যথার ঘটনা দেখা দিতে পারে। তাই বিএমআই অনুযায়ী ওজন রাখার চেষ্টা করতে হবে।

৪. হাঁটুতে ব্যথার স্থানে গরম ছেঁকা দেওয়া

এই পদ্ধতিটি অনেক আগে থেকেই চলে আসছে্। যেখানে ব্যথা হয় সেখানে গরম ভাপ অথবা ছেঁকা দেওয়ায় ব্যথা থেকে আরাম পাওয়া যায়। এরজন্য একটু কাপড় কিংবা কোনো প্যাড আগুনে / রোদে তাপ দিয়ে গরম করে নিয়ে তারপর ব্যথার জায়গায় কয়েক মিনিট ধরে রাখতে হবে। ব্যথা না কমা পর্যন্ত কিছুক্ষণ পরপর এভাবে ছেঁকা দিতে হবে।

৫. বরফ

ঠাণ্ডায় ব্যথা অনেকটা কম অনুভূত হয়। কয়েক টুকরা বরফ একটা কাপড়ে পেঁচিয়ে যেখানে ব্যথা হচ্ছে সেখানে চেপে ধরে রাখুন। ব্যথা না উপশম হওয়া পর্যন্ত কিছুক্ষণ পরপর এটা প্রয়োগ করুন।

৬. পা টিপে দেওয়া
যে কারণেই ব্যথা হোক, পা ও হাঁটু টিপে দিলে অথবা নিজেই টিপতে থাকলে ব্যথা অনেকটাই কম অনুভব হয়।

৭. প্রতিদিন ব্যায়াম করা

ব্যায়াম করলে হাড় সহ দেহের সকল অঙ্গপ্রত্যঙ্গের উপকার হয়। ব্যায়ামের ফলে হাড় শক্ত ও সক্রিয় থাকে। যাদের হাঁটু ব্যথার ইতিহাস আছে, তাদের উচিত এটা থেকে দূরে থাকতে প্রতিদিন সকালে কিংবা সন্ধ্যায় ২০-৩০ মিনিট করে পায়ের ব্যায়াম করা। হাঁটা, জগিং-ই যথেষ্ট।

৮. ঘুম
ক্লান্তির জন্য হওয়া পা ও হাঁটু ব্যথা দূর করতে ঘুম সবচেয়ে ভালো উপায়।

৯. ব্যথানাশক

প্যারাসিটামল, এসপিরিন এর ট্যাবলেটের মাধ্যমে কম সময়ের মধ্যেই ব্যথা দূর হয়ে যায়। কিন্তু সব ব্যথানাশক ওষুধ নিরাপদ নয়। তাই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ট্যাবলেট নিতে হবে।

ব্যথানাশক হিসেবে ব্যথার স্থানে প্রয়োগ করা যায় বাম/মলম, স্প্রে। বাজারে অনেক রকম মলম ও স্প্রে পাওয়া যায়। জনপ্রিয় একটি ব্যথানাশক স্প্রে হচ্ছে ভলিনি জেল। আপনার ব্যথা দ্রুত দূর করতে আলাউল ডটকম থেকে কিনে নিন এই ব্যথা উপশমকারী স্প্রে। লিংক – https://www.alaul.com/product/volini-pain-relief-gel-30gm/

এই উপায়গুলো প্রয়োগ করলেই অসহ্যকর হাঁটু ব্যথা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যাবে।

Back to list

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *